পিতৃত্ব যেন দীর্ঘ ভ্রমণের মতো। জন্ম থেকে কেউ পিতা মাতা হয় না। এটি জীবনের একটি প্রক্রিয়ার মতো।  সন্তানের প্রতি মায়েদের যেমন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব থাকে, তেমনই বাবারও দায়িত্ব থাকে। সন্তানের সুখ, সমৃদ্ধি, সুন্দরভাবে বেড়ে ওঠার পেছনে বাবার অবদানের শেষ নেই। পরিবারে যখন প্রথম সন্তান জন্মলাভ করে তখন সকলের খুশির অন্ত থাকে না। কারণ বাবা মায়ের কাছে সন্তান হলো সৃষ্টিকর্তার দেয়া অকৃত্রিম ও মূল্যবান উপহার।

বাবার কোলে শিশু; Source: Raising Children Network

নতুন বাবা হওয়ার আগেই বাবকে জানতে হবে বেশ কিছু বিষয় সম্পর্কে। যেন সন্তান জন্মলাভের পর তাকে সুন্দরভাবে লালন পালন করতে পারেন। সন্তানের ডায়াপার পরিবর্তন করা, স্ত্রীকে কাজে সহায়তা করা, সন্তানকে ঘুম পাড়ানো ইত্যাদি সব বিষয়গুলো সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা রাখতে হবে।

তাহলে সন্তানের সাথে আপনার আত্মিক বন্ধন আরো সুদৃঢ় হবে। নতুন বাবা হিসেবে সন্তানের যেসব বিষয় খেয়াল রাখবেন তা সম্পর্কে জেনে নিন।

শিশুকে ডায়াপার
পরানোর কৌশল

একজন নতুন বাবা হিসেবে আপনাকে প্রথমেই জানতে হবে কীভাবে সন্তানের ডায়াপার পরাবেন এবং কীভাবে সন্তানের ডায়াপার পরিবর্তন করবেন। সন্তান জন্মের আগে থেকে এসব অভ্যাসগুলো পুরুষের থাকা দরকার। সন্তান জন্মদানের পর মায়েরা সন্তানকে নিয়ে অনেক ব্যস্ত হয়ে যায়।

শিশুর ডায়াপার পরিবর্তন; Source: SheKnows

এ সময়ে মায়েরা নিজেদের খেয়াল ও যত্ন নেওয়ার সময় খুঁজে পায় না। এ সময়ে মায়েরা অনেক ব্যস্ত থাকে। আপনার স্ত্রীকে কিছুটা স্বস্তি দিতে চাইলে আপনি সন্তানের যত্ন নিন এবং স্ত্রীকে বিশ্রামের সময় দিন।

সহজ কাজগুলোর
দায়িত্ব

বাবা হিসেবে আপনার নবজাতক শিশুর সহজ কিছু দায়িত্ব আপনি পালন করুন। সন্তানকে নিয়ে একটু হাঁটাহাঁটি করা, সন্তানের কাঁথা ও পোশাক পরিবর্তন করা, সন্তানের কান্না থামানো ইত্যাদি কাজগুলো করুন।

সহজ কাজগুলোর দায়িত্ব; Source: youworkforthem.com

এতে আপনার স্ত্রী কিছুটা স্বস্তি পাবে। তাছাড়া প্রায় সব বাবারা এই ছোট ছোট কাজগুলো ভালো পারে। তাছাড়া বাড়িতে কোনো অতিথি এলে তাদের আপ্যায়নের দায়িত্ব নিন আপনি। প্রসূতি মায়ের পক্ষে সকল কিছু সামলানো কঠিন হয়ে পড়ে।

ওষুধ গ্রহণ

সন্তান জন্মের পর আপনার স্ত্রী ও সন্তানের কোনো জরুরী ওষুধ খাওয়ার প্রয়োজন হতে পারে। সেক্ষেত্রে ওষুধ খাওয়ার নিয়মাবলী, সময়সূচী ইত্যাদি আপনি তাদের স্মরণ করিয়ে দিন। নতুন মা অনেক ব্যস্ততার ফাঁকে ওষুধ খেতে ভুলে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনি মনে করিয়ে দিলে ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না।

বিছানা প্রস্তুত
ও স্ত্রীর প্রতি খেয়াল

রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে বিছানা প্রস্তুতের কাজ আপনি করুন। সারাদিন আপনার স্ত্রী নানা কাজ করে ক্লান্ত হয়ে পড়ে। আপনি যদি বিছানা গোছানো ও প্রস্তুতের দায়িত্ব নেন, তাহলে তার স্বস্তি হবে। তাছাড়া স্ত্রীর প্রতি খেয়াল রাখুন। তার কোনো ওষুধের দরকার আছে কিনা, কোনো কিছু খেতে ইচ্ছে করছে কিনা ইত্যাদি বিষয়গুলোর দিকে খেয়াল রাখুন।

ডেলিভারির পদ্ধতি

আপনার গর্ভবতী
স্ত্রীর সাথে আগে থেকে আলোচনা করে নিন কোন পদ্ধতিতে ডেলিভারি করালে তার সুবিধা
হবে। প্রথমে সিজার করানো উচিত হবে কিনা। ডেলিভারির সময় রক্ত লাগতে পারে। তাই আগে
থেকে দুইজন রক্ত দাতার সন্ধান করে রাখতে হবে। কোন হাসপাতালে ভালো চিকিৎসা দেওয়া হয়
সেসব আগে থেকে জেনে নিন। প্রতিটি পদক্ষেপ নেওয়ার আগে ভাবুন। চিকিৎসকের পরামর্শ
অনুযায়ী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করুন।

ডায়াপার ব্যাগে
কী কী থাকে তা জানুন

আপনার স্ত্রীর
ডেলিভারির আগে ডেলিভারি ব্যাগ গুছিয়ে দিন। সেই সাথে জানুন ডায়াপার ব্যাগে কী কী
থাকে তা সম্পর্কে। ডায়াপার ব্যাগে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, ময়েশ্চারাইজিং ক্রিম,
ডায়াপার র‍্যাশ ক্রীম, অতিরিক্ত মোজা, প্ল্যাস্টিক ব্যাগ, ন্যাপকিন, অতিরিক্ত
পোশাক, কম্বল ইত্যাদি থাকে। এসব জিনিসপত্র সুন্দর করে গুছিয়ে ডায়াপার ব্যাগে
রাখুন। বাবা হওয়ার আগে থেকে সন্তানের প্রতি দায়িত্বশীল হোন।

জানুন যেভাবে গরম
করতে হয়

সন্তান জন্মের পর পরই সন্তান পৃথিবীর পরিবেশের সাথে খাপ খাওয়াতে পারে না। অনেক সময় লাগে। সন্তানের জন্মের পর তার ত্বক খুব সেনসিটিভ থাকে। এই সময় ঠাণ্ডা পানিতে তাকে গোসল করানো ঠিক না। তাকে ঠাণ্ডা দুধ খাওয়ানো ঠিক না। আপনি শিখে নিন কীভাবে দুধ গরম করতে হবে, তাকে কুসুম গরম পানিতে গোসল করাতে হবে এবং উষ্ণ পানিতে ভালো করে পোশাক ধুয়ে, রোদে শুকিয়ে তাকে পরাতে হবে।

শিশুর গোসল; Source: BabyCenter

এই কাজগুলো মেয়েদের কাজ হলেও একক পরিবারে সাধারণত অনেক সদস্য থাকে না। সেক্ষেত্রে আপনার পোয়াতি স্ত্রীর পক্ষে এত দায়িত্ব নেওয়া সম্ভব হবে না। তাই আপনি এই সংক্রান্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে জেনে নিন এবং স্ত্রীকে সাহায্য করুন।

স্ত্রীর সাথে কাজ
ভাগাভাগি করে নিন

শিশুর জন্মের পর থেকে তাকে অনেক আদর যত্ন করে লালন পালন করতে হয়। সাধারণত শিশুকে বড় করে তোলার, লালন পালন করার সব দায়িত্ব থাকে মায়েদের ওপর। তবে সচেতন বাবা হিসেবে আপনারও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করতে হবে।

সন্তানকে খাওয়ানো; Source: Flourishing Dads

আপনার স্ত্রীর সাথে আপনি সন্তান পালনের ব্যাপারে সময় ভাগাভাগি করে নিন। এতে আপনার স্ত্রী বিশ্রাম নেওয়ার সময় পাবে। অফিস থেকে ফিরে রাতের বেলা কিংবা যেকোনো ছুটির দিনে কয়েক ঘণ্টা সময় শিশুকে কোলে রাখতে পারেন, ঘুম পারাতে পারেন কিংবা খাওয়াতে পারেন।

আর্থিক বিষয়াদি

শিশুকে লালন পালন
করার জন্য অর্থের প্রয়োজন। তাই শিশুর জন্মের আগেই আর্থিক বিষয়াদি নিশ্চিত করুন। ডেলিভারি
থেকে শুরু করে আরো অনেক কিছুতে টাকার প্রয়োজন হয়। অর্থের যোগান না থাকলে বিপদে
পড়তে হবে।

বাড়ির পরিবেশকে
শিশুর উপযোগী করুন

আপনার সন্তানের বেড়ে ওঠার পেছনে নিরাপদ পরিবেশ গুরুত্বপূর্ণ। তাই আপনার বাড়ির পরিবেশকে নিরাপদ করুন। শিশু যেন নির্ভয়ে হামাগুড়ি দিতে পারে, হাঁটতে পারে তা নিশ্চিত করুন। বাড়ির চারপাশকে ধুলোবালি মুক্ত রাখুন এবং কোনো ধারালো বস্তু এখানে সেখানে ফেলে রাখবেন না।

Featured Image Source: Growing Your Baby

লেখক – Rikta Richi

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here