খেলনা শিশুর সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। শিশুরা খেলতে ভীষণ পছন্দ করে। তারা খেলাধুলাকে জীবনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ মনে করে। বিদ্যালয়গামী শিশুরাও খেলতে ভালবাসে। বিদ্যালয়ের বন্ধুবান্ধব ছাড়াও প্রতিবেশী বন্ধুদের সাথে তাদের খেলা জমে ওঠে।

বিভিন্ন ধরনের পুতুল, পিস্তল, টেডি বিয়ার, ছোট ছোট হাড়ি পাতিল ইত্যাদি তাদের খেলার মূল উপকরণ। মেয়ে শিশুরা মায়ের ওড়না পেঁচিয়ে শাড়ি পরে এবং অফিসে যাতায়াত, বাচ্চাদের পড়াশুনা করানো এধরনের খেলাধুলা করে। এগুলো শিশুকে ভবিষ্যৎ জীবন সম্পর্কে ধারণা দেয়।

শিশুর খেলনা; Source: SelectHealth

খেলাধুলার মাধ্যমে শিশুদের সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পায়, সামাজিক মনোভাব বৃদ্ধি পায়, বন্ধুসুলভ আচরণ বৃদ্ধি পায়। খেলাধুলার মাধ্যমে শিশুদের মানবীয় গুণাবলীও বিকশিত হয়। তাই শিশুর খেলাধুলার জন্য খেলনা কেনা খুব জরুরী। তবে খেলনা কেনার আগে কোন খেলনাটি নিরাপদ আর কোনটি নিরাপদ নয় তা নিয়ে ভাবতে হবে। অনিরাপদ খেলনা থেকে শিশুকে দূরে রাখা শ্রেয়। শিশুর খেলনা কেনার সময় বেশ কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে।

যে কারণে নিরাপদ
খেলনা কেনা প্রয়োজন

শিশুর নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে নিরাপদ খেলনা কেনা প্রয়োজন। নয়তো হঠাৎ কোনো না কোনো দূর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। শিশুরা যখন খেলনা নিয়ে খেলে তখন সেগুলো হাত থেকে পড়ে যায়, অনেক সময় খেলনার কোনো অংশ ভেঙ্গে যায়। এমন কোনো খেলনা কেনা যাবে না যেগুলো থেকে কোনো ধরনের দূর্ঘটনা যেমন শর্ট সার্কিট, হাত পা কেটে যাওয়া ইত্যাদি হতে পারে।

শিশুর জন্য
উপযুক্ত খেলনা কেনার টিপস

শিশুরা খেলনা
নিয়ে খেলতে খেলতে তা মুখে ঢোকায় প্রায় সময়। এমন খেলনা কিনতে হবে যেন তা মুখে দিলে
কোনো প্রকার ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা না থাকে। শিশুর জন্য খেলনা কেনার টিপসগুলো হলো

বয়স অনুযায়ী
খেলনা

শিশুর জন্য খেলনা কেনার আগে ভেবে দেখুন বয়সের সাথে খেলনাটি সামঞ্জস্য কিনা। রং বেরঙের হাজার খেলনা দেখে প্ররোচিত হয়ে খেলনা কেনা যাবে না। ছয় মাসের শিশুর জন্য দামি গাড়ি, সাইকেল, বন্দুক ইত্যাদি কিনে লাভ নাই। কারণ সে এগুলো নিয়ে খেলতে পারবে না।

খেলায় মত্ত শিশু; Source: KTVO

ছয় মাসের শিশুর জন্য এমন খেলনা কিনতে হবে যেন তা চোখের সামনে রাখলে শিশু আনন্দ পায়। যেমন- ঝুনঝুনি। দেড় দুই বছর বয়সী শিশুর জন্য কিনতে পারেন পুতুল, টেডি বিয়ার, ক্লে সেট ইত্যাদি।

খেলনার আকার

আপনার সন্তানের জন্য
খেলনা কেনার আগে অবশ্যই খেলনার আকার দেখে কিনবেন। খেলনাগুলো যদি অতিরিক্ত ছোট হয়
তাহলে যেকোনো সময় বাচ্চারা গিলে ফেলতে পারে। তাহলে নানা ভোগান্তি পোহাতে হবে।
এমনকি বাচ্চার বড় ধরনের সমস্যাও হতে পারে। আবার অতিরিক্ত বড় খেলনা কেনার দরকার
নেই। অতিরিক্ত বড় খেলনা নিয়ে শিশু খেলতে পারবে না বরং আরো অসুবিধা হবে।

উচ্চ আওয়াজের
খেলনা পরিত্যাগ করুন

শিশুরা মিউজিক আছে এমন খেলনা নিয়ে খেলতে ভালবাসে। তারা গান শুনতেও ভালবাসে। এখন অনেক খেলনার সাথে মিউজিক থাকে। যেমন পুতুলের ভেতরে ব্যাটারি সিস্টেম থাকার কারণে পুতুল নাচে এবং গান গায়।

উচ্চ আওয়াজের খেলনা; Source: Mankato Free Press

মিউজিক থাকা ভালো। তবে উচ্চ মিউজিক কিংবা উচ্চ আওয়াজ পরিবেশ দূষণ করে। তাই উচ্চ আওয়াজের খেলনা না কেনা শ্রেয়। নয়তো শব্দ দূষণ হবে এবং শিশুদের কানের ক্ষতি হবে।

ঢিলেঢালা
পার্টসের খেলনা নয়

সন্তানের জন্য খেলনা কেনার সময় খেয়াল রাখবেন খেলনার কোনো পার্টস যেন ঢিলেঢালা ও ভঙ্গুর না থাকে। যেহেতু দাম দিয়ে খেলনা কিনবেন সেহেতু ভঙ্গুর খেলনা কেন কিনবেন? তাছাড়া ঢিলেঢালা পার্টসের খেলনা যেকোনো সময় ভেঙ্গে যেতে পারে এবং শিশুর মুখে চলে যেতে পারে। তাই এধরনের খেলনা কেনা থেকে বিরত থাকুন।

ধোয়া যায় এমন খেলনা

শিশুরা বিভিন্ন খেলনা মুখে দিতে পছন্দ করে। তাই এমন খেলনা কেনা উচিত যেগুলো ধোয়া যায় এবং পরিষ্কার করা যায়।

ধোওয়া যায় এমন টেডি; Source: AliExpress.com

বাচ্চারা খেলতে খেলতে যেকোনো জিনিস অনেক নোংরা করে ফেলে। যা তাদের জন্য ক্ষতিকর হয়ে যায়। তবে খেলনা যদি কিছুদিন পর পর ধোওয়া যায় তাহলে সে ভয় থাকবে না।

তারবিহীন খেলনা

খেলনায় যদি তার, সুতো কিংবা ঝুলানো কোনো অংশ থাকে তাহলে ভালো করে দেখে কেনা উচিত। নয়তো কেনার পর বিপদ হতে পারে। বাচ্চারা কোনো কিছু না বুঝেই খেলনা নিয়ে টানাটানি করে।

তার, সুতা কিংবা অন্যান্য অংশ থাকলে তা যেকোনো সময় দূর্ঘটনার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাই এমন খেলনা কেনা থেকে বিরত থাকা শ্রেয়। অনেক সময় তার পেঁচিয়ে গেলে শিশুরা তা থেকে বেরিয়ে আসতে পারে না।

ধারালো কোণাযুক্ত
খেলনা নয়

শিশুদের ত্বক থাকে খুব নরম ও স্পর্শকাতর। তারা সহজে রোগাক্রান্ত হয়ে যায়। যেহেতু শিশুরা সারাক্ষণ খেলনা নিয়ে খেলতে ভালবাসে, সেহেতু তাদের হাতে ধারালো কোণাযুক্ত খেলনা না দেওয়া উত্তম।

ধারালো কোণাযুক্ত খেলনা; Source: Transformers Toys – TFW2005

ধারালো কোণাযুক্ত খেলনা নিয়ে খেলতে গেলে হঠাৎ করে তাদের হাত, পা কিংবা শরীরের কোনো অংশ কেটে যেতে পারে।

বৈদ্যুতিক খেলনা
থেকে দূরে থাকুন

নিশ্চয় বুঝতে পারছেন কেন বৈদ্যুতিক খেলনা না কেনার কথা বলা হচ্ছে। কেননা বৈদ্যুতিক খেলনা দিয়ে খেলতে গেলে যেকোনো সময় শিশুরা শর্ট সার্কিটের শিকার হতে পারে।

বৈদ্যুতিক খেলনা; Source: www.alibaba.com

শিশুরা অবুঝ। কোনটা ভালো, কোনটা ভালো নয়, কোনটা দূর্ঘটনা ডেকে আনতে পারে এসব নিয়ে তারা ভাবতে পারে না। ভাবার মতো হিতাহিত জ্ঞান তাদের থাকে না। তাই অভিভাবক হিসেবে আপনাকে এসব ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে।

বিষাক্ত খেলনা নয়

যেসব খেলনায় রাবার, পেইন্ট ও প্লাস্টিক জাতীয় পদার্থের ব্যবহার রয়েছে সেসব খেলনা না কেনা ভালো। কেননা এসব উপাদানে বিষক্রিয়া থাকতে পারে। এসব উপাদানে সীসা মিশ্রিত থাকে, যা শিশুদের জন্য ক্ষতিকর। তাই সন্তানকে খেলনা কিনে দেওয়ার আগে ভেবে চিনতে সিদ্ধান্ত নিন কোন খেলনা তার জন্য ভালো।

Featured Image Source: youtube.com

লেখক – Rikta Richi

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here