জীবন গতিময়। ঘোড়ার মতো সময় দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে। ব্যস্ত নগরীতে নারী পুরুষ সকলে নিজস্ব কাজ নিয়ে ব্যস্ত। ইটের পর ইট রেখে গাঁথা রয়েছে যে দেয়াল, সেই দেয়ালের ভেতরে বেড়ে ওঠা শিশুদের প্রাণ যেন যায় যায় অবস্থা। শিশুরা প্রাণবন্ত সময় কাটানোর, উচ্ছ্বসিত হওয়ার কোনো সুযোগই পায় না।

কেননা নগরীতে নেই কোনো খোলামেলা স্থান, যেখানে বুক ভরে নিঃশ্বাস নেওয়া যায়। তবে শিশুর জন্য প্রাণচাঞ্চল্য, বুক ভরে নিঃশ্বাস নেওয়া, হাসি খুশি থাকা উত্তম। তাহলে শিশুর মনোযোগ, একাগ্রতা বাড়ে। কোনো বিষয়ের প্রতি দৃষ্টি নিবদ্ধ করতে পারে গভীরভাবে। শিশুরা যদি সবসময় প্রাণবন্ত থাকতে শেখে তাহলে তারা যেকোনো দুশ্চিন্তাকে সামলাতে পারবে।

শিশুর মনোযোগ কী?

মনোযোগ হলো সচেতনতা। সহজ ভাষায় বলা যায় আমাদের চারপাশের যা কিছু রয়েছে তা নিয়ে ভাবা, তার দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করা, অন্যান্যদের সাথে যুক্ত থাকার অনুভূতিকে মনোযোগ বলে। মনোযোগ নিয়ে যেসব গবেষণা করা হয়েছে তা থেকে জানা যায়- একাগ্র চিনতে কোনো কিছু নিয়ে ভাবলে তা সম্পর্কে পরিষ্কার জ্ঞান লাভ করা যায় এবং এর কোনো প্রতিক্রিয়া নেই।

শিশুর একাগ্রতা; Source: My Empowered World

যেসব শিশুর মনোযোগ ও একাগ্রতার অনুশীলন আছে, তারা সুস্পষ্ট ও পরিষ্কারভাবে যেকোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে। একাগ্রতা ও মনোযোগের অনুশীলন করলে মেধা বৃদ্ধি পায়, দক্ষতা বাড়ে এবং শিশুর আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পায়।

শিশুদের মনোযোগ ও
একাগ্রতা বৃদ্ধির সুবিধা

মনোযোগ ও একাগ্রতা বৃদ্ধি পেলে শিশুরা অনেক কিছু সম্পর্কে নিখুঁত ধারণা লাভ করতে পারে। তাই শিশুর মনোযোগ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। এর অনেক সুবিধাও রয়েছে। জেনে নিন শিশুদের মনোযোগ ও একাগ্রতা বৃদ্ধির সুবিধা সম্পর্কে।

শিশু আরো সচেতন
হয়

আপনার সন্তান যদি একাগ্রতার সাথে যেকোনো কাজ করতে পছন্দ করে তাহলে তাকে বাহবা দিন। কেননা একাগ্রতার সহিত কাজ করলে সে আরো সচেতন হবে।

সচেতন শিশু; Source: Alive

আর তার সচেতনতা তাকে আরো সতর্ক করবে। বিদ্যালয়ের ফলাফল ভালো করার ব্যাপারেও সে আরো উৎসাহী হবে।

অনুধাবন ক্ষমতা
বৃদ্ধি

সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর করার জন্য শিশুর অনুধাবন শক্তি থাকা বাঞ্ছনীয়। আপনার সন্তান যদি মনোযোগী হয়, তাহলে তার অনুধাবন শক্তি বা ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। জীবনের যেকোনো সমস্যা, ভালো প্রভাব কিংবা যেকোনো বিষয়ের প্রতি দৃষ্টি নিবদ্ধ করে সে সেখান থেকে ভালো দিক অথবা খারাপ দিক সম্পর্কে জানতে চেষ্টা করবে।

পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা; Source: vimeo.com

আরো গভীরে গিয়ে ভাবতে চেষ্টা করবে। এভাবে শিশুর ভাবনার দুয়ার খুলে যাবে এবং সে আত্মতৃপ্তি লাভ করবে। তাই অনুধাবন ক্ষমতা বাড়াতে মনোযোগের বিকল্প নেই।

চুপ থাকার
সক্ষমতা

আপনার সন্তান যদি একাগ্রচিত্তে যেকোনো কাজ করতে পছন্দ করে, তাহলে তার শান্ত থাকার প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে। সে খুব সহজে অশান্ত ও ধৈর্যহারা হবে না।

মনোযোগী শিশুরা হারকে ভয় পায় না বরং পুনরায় চেষ্টা করে জেতার জন্য। তাই মনোযোগ আপনার সন্তানকে সহনশীল ও ধৈর্যশীল করবে এবং সফল হওয়ার পথ উন্মোচন করে দেবে।

আবেগ নিয়ন্ত্রণ
করতে পারবে

সাধারণত শিশুরা আবেগপ্রবন প্রকৃতির হয়। তারা খুব কান্না করে, খুব রাগ দেখায়। তবে আপনার সন্তান যদি মনোযোগী ও একাগ্রচিত্তের হয় তাহলে আবেগ নিয়ন্ত্রণ করা শিখবে। সে কখনো চাইবে না ছোট বিষয় নিয়ে অযথা আবেগ দেখাতে। তার মধ্যে অনেকটা পরিপক্বতা কাজ করবে।

সন্তান অধিক
কর্মক্ষম হবে

আপনার সন্তান যদি মনোযোগী হয় তাহলে সে অনেক কর্মঠ ও কর্মক্ষম হবে। সে নিয়মিত পড়াশুনা করবে, খেলাধুলা করবে এবং সর্বদা ভালো থাকার চেষ্টা করবে। আবেগ নিয়ন্ত্রণ করে সে দক্ষতা বৃদ্ধিতে ব্যস্ত থাকবে। তার ভেতর থেকে অনুপ্রেরণা আসবে এবং ভালো কাজে সর্বদা উৎসাহিত হবে।

সময় বাঁচানো
শিখবে

শিশুরা কি সবসময় অলস, অকর্মণ্য নয়? শিশুদের মাঝে কি সময় নষ্ট করার প্রবণতা বেশি? তা ঠিক নয়। মনোযোগী শিশুদের মধ্যে সময় নষ্ট করার মানসিকতা থাকে না। তারা সর্বদা সময় বাঁচাতে চায়।

শিশুর খেলাধুলা; Source: The Parent Report

পড়াশুনা সঠিক সময়ের মধ্যে শেষ করে এবং খেলাধুলাও ঠিক সময়ে করে। তারা সবদিকে ভালো করে। তাদের নিজস্ব চিন্তার জগত থাকে। সে জগতে তারা নিজেরাই সেরা। নিজস্ব চিন্তাশক্তি ও দক্ষতা ব্যবহার করে সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করতে সক্ষম হয় মনোযোগী শিশুরা।

ইতিবাচক মনোভাব
বৃদ্ধি

মনোযোগী শিশুদের মাঝে ইতিবাচক মনোভাব বেশি থাকে। তারা যেকোনো কাজ আনন্দের সাথে করতে ভালোবাসে। তারা হারতে চায় না। আর হেরে গেলেও ভেঙে পড়ে না। পুনরায় সফল হওয়ার জন্য কাজ করে।

যেভাবে শিশুদের
মনোযোগী করে তুলবেন

শিশুদের মনোযোগ
আপনা আপনি বৃদ্ধি পায় না। আপনি বিভিন্নভাবে শিশুদের মনোযোগ বৃদ্ধি করতে পারেন।
জেনে নিন কৌশলগুলো সম্পর্কে।

সুন্দর পরিবেশে
হাঁটা

রোজ সকাল কিংবা সন্ধ্যায় সন্তানকে নিয়ে সুন্দর পরিবেশে হাঁটতে যান। তাহলে আপনার সন্তানের মন ভালো থাকবে।

হাঁটা; Source: naeyc

তাকে বিভিন্ন জিনিস দেখিয়ে জানতে চান কেমন লাগলো। এভাবে রোজ রোজ অনুশীলন করলে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

আপনি আপনার
সন্তানকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করার প্রতি জোড় দিন। স্রষ্টার প্রতি কৃতজ্ঞতা এবং যারা
উপকার করে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা উচিত। কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলে মন ভালো
থাকে।

মনোযোগ সহকারে
খাওয়া

অনেক শিশুরা
খাবার খাওয়ার সময় অনেক ছুটোছুটি করে। কেউবা আবার টেলিভিশন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে যায়।
আপনার সন্তানকে মনোযোগ সহকারে খাওয়ার অভ্যাস করতে দিন। খাওয়ার সময় সন্তানকে টেলিভিশন
ও অন্যান্য ডিভাইস থেকে দূরে রাখা উচিত।

ইয়োগা অনুশীলন

সন্তানের মনোযোগ বৃদ্ধির জন্য আপনি সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে ইয়োগা অনুশীলন করতে পারেন।

ইয়োগা; Source: Brightly

ইয়োগা ও মেডিটেশন মনোযোগ বৃদ্ধি করতে সহায়ক।

Featured Image Source: collective-evolution.com

লেখক – Rikta Richi

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here