শিশু কিশোরেরা অনেক সময় নানা কারণে পিঠে ব্যথা পায়। তারা নিজেরা কখনো কখনো বুঝতে পারে না কিংবা কাউকে বলতে পারে না পিঠে ব্যথা সম্পর্কে। তবে আপনি যদি বুঝতে পারেন তার ব্যথা সম্পর্কে তাহলে পিঠে ব্যথার কারণ জিজ্ঞেস করুন এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিন।

পিঠে ব্যথা

পিঠে ব্যথা বা ব্যাকপেইন হলো এমন একপ্রকার ব্যথা যা মেরুদণ্ড বা শিরদাঁড়ায় আঘাত পাওয়ার কারণে হয়। ব্যাকপেইন খুব সাধারণ নয়।

শিশুর কোমর ব্যথা; Source: MomJunction

এটি যেকোনো সময় তীব্রতর হতে পারে। মেরুদণ্ডের নিচের দিকে ব্যথা হলে তাকে কোমরের ব্যথা হিসেবেও চিহ্নিতকরা হয়। আজকাল শিশু কিশোরদের মধ্যে ব্যাকপেইন, কোমরের ব্যথা প্রায় দেখা যায়।

শিশু কিশোরদের
পিঠে ব্যথা বা ব্যাকপেইনের ধরন

শিশু কিশোরদের ব্যাকপেইন বা কোমর ব্যথা যদি দু’একদিন থাকে তাহলে তা নিয়ে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। তবে তাদের ব্যথা যদি বেশ কয়েক মাসের মতো থাকে তাহলে তা সত্যিই ভাববার বিষয়। কোমরের ব্যথা যদি ছয় সপ্তাহের বেশি সময় ধরে থাকে তাহলে বুঝতে হবে এটি দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা। এমতাবস্থায় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া জরুরি।

যেসব কারণে কোমর
ব্যথা বা ব্যাকপেইন হয়

শিশু কিশোররা অনেক সময় খেলতে গিয়ে পড়ে যায় কিংবা দারুণ আঘাত পায়। এই আঘাতের কয়েক দিন পর ব্যথা হতে পারে। তাছাড়া আরো অনেক কারণে পিঠ, কোমর ব্যথা হতে পারে।

আঘাত বা জখম

খেলাধুলা করা শিশু কিশোরদের জন্য ভালো। খেলাধুলা করলে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ভালো থাকে, সচল থাকে। শিশু কিশোরেরা অনেক সময় টেবিল টেনিস, সাঁতার, ফুটবল, ক্রিকেট খেলতে গিয়ে অনেক বড় ধরনের আঘাত পায়।

সে আঘাতের ফলে তার মেরুদণ্ডের ব্যাপক ক্ষতি হতে পারে। এই ধরনের আঘাতের কারণে তার দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা হতে পারে। তাই আপনার সন্তান যখন খেলতে যাবে তখন তাকে সাবধানে থাকতে বলুন।

দূর্বল
অঙ্গবিন্যাস

শিশু কিশোরদের হাড় ও অঙ্গ বিন্যাস দূর্বল প্রকৃতির হয়। তারা যদি একটানা অনেক ঘণ্টা বসে থাকে, কিংবা একটানা বেশ কয়েক ঘণ্টা বসে বসে পড়াশুনা করে বা টিভি দেখে তাহলে তাদের মেরুদণ্ডের সমস্যা হতে পারে। কারণ একটানা দীর্ঘ সময় বসে থাকা উচিত নয়। তাছাড়া দীর্ঘ সময় কম্পিউটার চালানো, বসে বসে গেমস খেলার কারণেও পিঠে ব্যথা হতে পারে। শুধু তাই নয় ঘুমানোর সময় উল্টোভাবে কিংবা বেশি এলোমেলো হয়ে ঘুমালেও পিঠে ব্যথা, কোমর ব্যথা হতে পারে। তাই ঘুমানো উচিত সোজাবস্থায়।

ভারী স্কুল ব্যাগ

বর্তমান কালের শিক্ষা ব্যবস্থা ও বিদ্যালয়ের অতিরিক্ত চাপের কারণে শিশু কিশোরেরা হাঁপিয়ে যায়। রোজ রোজ বিদ্যালয়ে প্রতিটি বিষয় ও তার খাতা নিতে হয়। যার ফলে তাদের স্কুল ব্যাগ ভীষণ রকম ভারী হয়ে যায়।

ভারি স্কুল ব্যাগ; Source: malaysiantalk.com

রোজ রোজ ভারি স্কুল ব্যাগ বহন করে নিয়ে গেলে শিশু কিশোরদের পিঠে ব্যথা, কোমর ব্যথা হয়। শিশু কিশোরদের পিঠে ব্যথা হওয়ার অন্যতম প্রধান কারণ এটি।

স্থূলতা

অতিরিক্ত ওজন শিশু কিশোরদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। দুঃখজনক হলেও সত্যি অতিরিক্ত ওজন ও স্থূলতার কারণে শিশু কিশোরদের ব্যাকপেইন, পিঠে ব্যথা ও কোমরের ব্যথা হয়ে থাকে।

স্থূলতা; Source: The Indian Express

তাই শিশু কিশোরদের ওজন তার উচ্চতার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকা উচিত।

বয়ঃসন্ধি

বয়ঃসন্ধিকালের জন্য কিশোর কিশোরীদের কোমর ব্যথা, পিঠে ব্যথা হতে পারে। এ সময়ে ব্যাকপেইন হলে হতাশায় নিমজ্জিত হওয়ার কিছু নেই। চিকিৎসকরা মনে করেন, বয়ঃসন্ধিকালে ছেলে মেয়ে উভয়ের ব্যাকপেইন হতে পারে।

বয়সন্ধিকালের ব্যাকপেইন; Source: The Indian Express

তবে মেয়েদের ব্যাকপেইনের প্রবণতা বেশি থাকে। কারণ এটি শরীরবৃত্তীয় পরিবর্তনগুলোর লক্ষণ।

চিকিৎসা
সম্পর্কিত শর্ত

নানা রোগের কারণে
পিঠে ব্যথা, কোমর ব্যথা হতে পারে। ফিব্রোমেলজিয়া সচারাচর শিশু কিশোরদের হয় না। এটি
হলে পেশি ব্যথা, ঘুমের সমস্যা, অতিরিক্ত ক্লান্তিবোধ হয়। মোটকথা রোগের কারণে শরীরে
ব্যথা হয়।

দুশ্চিন্তা

শিশু কিশোরেরা পারিবারিক সমস্যা, বিদ্যালয়ের পড়ার চাপসহ আরো নানা বিষয় নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকে। দুশ্চিন্তা থেকে তারা হতাশায় ভোগে, ইনসমনিয়ায় ভোগে এবং সহজে তারা ক্লান্ত হয়ে যায়। এসব মানসিক অশান্তি ও দুশ্চিন্তার কারণেও কোমরে ব্যথা হতে পারে।

রোগ নির্ণয়

আপনার সন্তানের যদি অনেক দিন ধরে পিঠে, কোমরে ব্যথা থাকে তাহলে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। তারপর চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী এক্স-রে করুন। তাহলে তার মূল সমস্যা কী, কোথায় ক্ষয় হয়েছে তা সম্পর্কে জানতে পারবেন।

প্রতিকার
ব্যবস্থা

শিশু কিশোরদের কোমর ও পিঠে ব্যথা হলে তা প্রতিকার করা দরকার। নিম্নোক্ত অভ্যাসগুলোর মাধ্যমে ব্যথার তীব্রতা কমানো যায়।

বিশ্রাম

কোমর বা পিঠে ব্যথা হলে বিশ্রাম নিলে অনেকটা সেরে যায়। উপযুক্ত বিশ্রাম রোগ সারিয়ে তুলতে সক্ষম। তাই সন্তানের শরীর, কোমর ব্যথা হলে তাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে বিশ্রাম নিতে বলুন।

বিশ্রামরত শিশু; Source: restwellbaby.com

ব্যথা যদি গুরুতর না হয় তাহলে সে স্বাভাবিক সকল কাজ করতে পারবে।

গরম কিংবা ঠাণ্ডা সেঁক

ব্যথা যদি খুব গুরুতর না হয় তাহলে পিঠ ও কোমরে গরম পানির সেঁক অথবা বরফের সেঁক দিন। এই সেঁকগুলো ব্যথা উপশম করে। এগুলো ওষুধের চেয়েও কার্যকরী।

থেরাপি

আপনার সন্তানের
কোমর বা পিঠের ব্যথা নিরাময়ের জন্য থেরাপিস্টের কাছে গিয়ে শারীরিক থেরাপি দিতে পারেন।
থেরাপি ব্যথা উপশম করতে সহায়তা করে।

ওষুধ

চিকিৎসক যদি
ব্যথা নিরাময়ের জন্য ওষুধের পরামর্শ দেয় তাহলে আপনার সন্তানকে তা খেতে বলুন।
ইনজেকশনের প্রয়োজন হলে তা নিতে বলুন। তবে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোনো কাজ করবেন
না।

অস্ত্রোপচার

মেরুদণ্ডের ক্ষয়জনিত কারণ কিংবা হাড়ের পরিবর্তনের কারণে অনেক সময় অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হয় তাহলে সন্তানকে সুস্থ করার জন্য অস্ত্রোপচার করুন।

Featured Image Source: MomJunction

লেখক – Rikta Richi

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here